বাবুরাইলে মাদকসহ নানা অপরাধের ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করছে ফেন্সী সাইফুল, দ্রুত গ্রেফতারের দাবি এলাকাবাসির

ষ্টাফ রিপোর্টার : নারায়ণগঞ্জ সদর থানাধীন ১নং বাবুরাইল তাঁতিপাড়া এলাকার জামাতা মৃত সাদেক মিয়ার ছেলে সাইফুল ইসলাম ওরফে ফেন্সি সাইফুলের জমজমাট মাদক ব্যবসা দেদারছে চলছে।

ফেন্সী সাইফুল প্রায় তিন বছর আগে নারায়ণগঞ্জ শহরে নয়ামাটিতে হুসিয়ারীতে ৬ হাজার টাকা মাসিক বেতনে কাজ করতো।তিন বছরে ব্যবধানে সাইফুল এখন বৃত্তশালীদের তালিকায় তার রয়েছে তিন তিনটি বিশাল বাড়ী একাধিক পরিবহন ব্যবসা। এই যেন সিনেমার গল্পকে হার মানায় আলাউদ্দিনের চেরাক পেয়ে রাতারাতি বনে গেছেন কোর্টিপতি।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায় সাইফুল ওরফে ফেন্সি সাইফুলের এই পরিবর্তন হওয়ার পিছনের মূল কাহিনী হচ্ছে মাদক ব্যবসা, সাইফুল শুধু মাদক বিক্রিয় করে না তিনি তার একাধিক নিজ বাসভবনে যাদের কাছে মাদক বিক্রি করে তাদের মাদক সেবনের সুব্যবস্থা করে দিয়েছে,সে বাসভবন গুলোতে রাতভর চলে জুয়া, মাদক, সুন্দরী নারী দ্বারা দেহ ব্যবসা, এমন কোন অপরাধ নেই সাইফুলের পরিচালনা না করে।এলাকার সাধারণ মানুষ সেগুলো প্রতিবাদ করতে গেলে তাদেরকে সাইফুলের নিজস্ব সন্ত্রাসী বাহিনী দ্বারা বিভিন্ন হামলা চালায়, দেখায় তাদের বিভিন্ন মিথ্যা মামলা ভঁয়।সাইফুল ওরফে ফেন্সি সাইফুলের রয়েছে একাধিক কিশোর গ্যাং বাহিনী। সাইফুলের সেকেন্ড ইন কমান্ড ছিল র্যা ব্রের হাতে ক্রস ফায়ারে নিহত কিশোর গ্যাং প্রধান তুহিন।সাইফুল তুহিন নিহতের পর কিছুদিন চুপ থাকলে ও আবারও শুরু করে তার অপরাধ জগত।সাইফুল ওরফে ফেন্সি সাইফুলের বড় ভাই সাহেল মিয়ার অট্রো রিক্সা গ্যারেজে নিহত তুহিনের বাবা কাউছার মিয়াকে ম্যানেজারের দ্বায়িত্ব দেওয়া হয়।ফেন্সি সাইফুলের মাদক ব্যবসা বর্তমান পরিচালনা করছে করছে তার ভাই সাহেল, সাহেল এর রয়েছে নিজস্ব একাধিক অট্রো রিক্সা ড্রাইভার যাদের দ্বারা হোম ডেলিভারি মাধ্যমে মাদক বিক্রি করে থাকে।

স্থানীয় এলাকাবাসী জানতে চায়, সাইফুল ওরফে ফেন্সি সাইফুলের খুঁটির জোড় কোথায়? সূত্র আরো জানাযায় ভদ্রবেশে মুখশের আড়ালে এইসব অপরাধ পরিচালনা করছে সাইফুল ও তার বড় ভাই সাহেল। তাদের এইসব অপরাধের হাত থেকে মুক্তি চায় এলাকায় সাধারণ মানুষ। বাবুরাই এলাকায় মাদক সহ নানা অপরাধের ত্রাসের রাজত্ব কায়েম কওে চলেছে ফেন্সী সাইফুল ও তার বড় ভাই সাহেল। তাদের অত্যাচারে চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে এলাকাবাসির মধ্যে। এলাকাবাসির দাবি সাইফুল ওরফে ফেন্সি সাইফুল ও তার বড় ভাই সাহেল কে আইনের আওতায় এনে কঠিন শাস্তি দেওয়া হোক, যাতে আর কোন অপরাধী এলাকায় সৃষ্টি হতে না পারে। তাই তারা প্রশাসনের দৃষ্টি কামনা করেছেন।

এ বিষয়ে জানতে সাইফুলের মুঠো ফোনে একাধিক বার যোগাযোগ করলে তার মুঠো ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।

Please follow and like us: