লকডাউনের প্রভাব ইফতার বাজারে, ছিল না তেমন ভিড়

রুদ্রবার্তা২৪.নেট: পবিত্র মাহে রমজানের প্রথম দিনে ইফতারির দোকানগুলোতে সাধারণ মানুষদের ভিড় তেমন একটা লক্ষ্য করা যায়নি। দেশব্যাপী লকডাউনের প্রভাব পড়েছে নারায়ণগঞ্জ শহরের ইফতার বাজারে।
বুধবার (১৪ এপ্রিল) রমজানের প্রথম দিনেই বাদ আসর নগরীর ইফতারের বাজারগুলো সরেজমিনে পরিদর্শন করে দেখা যায়, লকডাউনের প্রভাবে ক্রেতাদের ভিড় ছিল কম। তবে ক্রেতা ও বিক্রেতাকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ইফতার কেনা-বেচা করতে দেখা গেছে।
গতবারের ন্যায় এবারও স্বাস্থ্যবিধি মেনে নগরীতে রোজাদারদের জন্য হোটেলগুলোর বাইরে বসানো হয় ইফতার বাজার। নগরীর বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ জায়গা চাষাঢ়া মোড়, বালুর মাঠ, উকিলপাড়া, ২নং রেলগেইট, মিশনপাড়াসহ বিভিন্ন স্থানে বসে ইফতারের ভ্রাম্যমাণ দোকান। ইফতারের দোকানগুলোতে বসে কেউ ইফতার করছে কিনা এবং স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে কিনা এসব বিষয়গুলোতে কড়া নজরদারি ছিল পুলিশ-প্রশাসনের।
এবারের নগরীর ইফতারের দোকানগুলোতে প্রথম দিনে ইফতার সামগ্রীর মধ্যে ছিল চিকেন কাবাব, চিকেন গ্রীল, শিক কাবাব, চিকেন বল, চিকেন পাকোড়া, চিকেন সাসলিক, চিকেন উইংস, জিলাপি, পিয়াজু, ছোলা, আলুর চপ, বেগুনি, বুন্দিয়া, বোরহানি ও তেহেরিসহ বাহারি খাবারের আইটেম।
একদিকে লকডাউন তাছাড়া নগরীর ইফতারের দোকানগুলোতে প্রতি বছরের ন্যায় ইফতারের জন্য নতুন কোনো খাবারের দেখা না মিললেও বিভিন্ন ধরনের ইফতারের কিনতে সাধারণ ক্রেতাদের কমতি ছিল না। সাধ্যমতো সবাই কিনছিলেন ইফতার। তবে লকডাউন পরিস্থিতির কারণে ইফতার বিক্রি কম বলে জানান দোকানদাররা।
এ বিষয়ে সুগন্ধা প্লাস রেস্তোরাঁর ম্যানেজার মিরাজ হোসেন জানান, বেচা-কেনার অবস্থা ভালো না। যতটুকু আশা করেছিলাম তার থেকেও কম। লকডাউনের জন্যে লোক বের না হওয়াতে ক্রেতা অনেক কম। যদি দোকানগুলোতে বসে ইফতার করার অনুমতি থাকতো তাহলে কিছুটা বেশি ক্রেতা পাওয়া যেত। কিছুক্ষন পর পর এসে পুলিশের লোক এসে দেখে যাচ্ছে যে, দোকানে কেউ বসছে কিনা এবং সরকারি স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে কিনা।
ইফতার কিনতে আসা মোজাম্মেল হোসেন জানান, আমাদের স্বাভাবিক চলাফেরায় কিছুটা কষ্ট হলেও আমাদের জন্যে ভালো একটি পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার। জিনিসপত্র কিনতেও কোনো সমস্যা হচ্ছে না সুষ্ঠুভাবে কিনতে পারছি আমরা। যদি এই কষ্টটুকু আমরা করতে পারি তাহলে আমাদের আগামী দিনগুলোর জন্যে ভালো হবে। দাম তেমন একটা বেশি না। আমাদের সাধ্যের মত কিনতে পারছি।

Please follow and like us: