সোলার প্যানেল ব্যবহারে কম খরচে সেচ সুবিধা পাচ্ছেন কৃষকরা

কালের বিবর্তনে আধুনিক হয়েছে সবকিছু। দেশের বৈদ্যুতিক ব্যবস্থার আধুনিকায়নের সাথে সাথে ব্যবহার বেড়েছে সোলার প্যানেলের। বাড়তি খরচ না থাকায় সোলারের দিকে আগ্রহ বাড়ছে অনেকের। ঠাকুরগাঁওয়ে সোলার প্যানেল ব্যবহারে কম খরচে সেচ সুবিধা পাচ্ছেন সেখানকার কৃষকরা।

জেলা কৃষি বিভাগের সূত্র মতে, চলতি বছর ঠাকুরগাঁও জেলায় ৬২ হাজার ৩৫০ হেক্টর জমিতে বোরো রোপণের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। ইতিমধ্যে ৫৮ হাজার ৪৮০ হেক্টর জমিতে বোরো চারা লাগানো হয়েছে। সোলার প্যানেলের মাধ্যমে জমিতে সেচ দিয়ে লাভবান হচ্ছেন কৃষকেরা। সেই সাথে তাদের উৎপাদন খরচ কমে গেছে। যার ফলে বোরো ধান বিক্রি করে অনেকটাই লাভবান হবেন জেলার কৃষকরা।

কৃষকরা জানান, সোলারের মাধ্যমে পানি দিলে বিদ্যুতের মতোই সল্প সময়ে সেচ সুবিধা পাওয়া যায়, এছাড়াও বাড়তি লোকের প্রয়োজন পড়ে না। কিন্তু আগে যখন সেলো মেশিন দিয়ে পানি দিতাম তখন বাড়তি লোক লাগতো, খরচও বেশি হতো। এখন আমরা সোলারের মাধ্যমে জমিতে সেচ দিচ্ছি। বর্তমানে ১ বিঘা জমিতে সোলার প্যানেল দিয়ে সেচ দিতে খরচ হচ্ছে ২ হাজার টাকা। অপরদিকে, সেলো মেশিন দিয়ে সেচ দিতে খরচ হয় ৩ থেকে ৪ হাজার টাকা।
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মো. আবু হোসনে জানান, চলতি বোরো মৌসুমে সোলার প্যানেলের সাহায্যে জমিতে সেচ কাজ করছেন কৃষকরা। সোলার প্যানেল ব্যবহারে কৃষকের খরচ এক তৃতীয়াংশ কমে গেছে।

Please follow and like us: