সোনারগাঁয়ে এক শিশু শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে মাদ্রাসা শিক্ষক গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টার : নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে মাদ্রাসা পড়ুয়া ৭ বছর বয়সী এক শিশু শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে মাওলানা মোশারফ মল্লিক নামের মাদ্রাসা শিক্ষককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গত মঙ্গলবার দুপুরে কাঁচপুর সোনাপুর এলাকায় অবস্থিত ফয়েজীয়া কওমীয়া নুরানী হাফেজীয়া মাদরাসা ও এতিমখানায় মাদ্রাসা শিক্ষক তার কক্ষে ওই শিশু শিক্ষার্থীকে ধর্ষনের চেষ্টা করে। ঘটনাটি জানাজানি হলে স্থানীয়রা মিমাংসার কথা বলে গড়িমসি করায় রোববার দুপুরে ওই ছাত্রীর মা বাদী হয়ে সোনারগাঁ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পরে পুলিশ ওই মাদ্রাসা থেকে অভিযুক্ত শিক্ষককে গ্রেফতার করে গতকাল সোমবার সকালে নারায়ণগঞ্জ জেলা আদালতে প্রেরণ করে। গ্রেফতারকৃত মোশারফ মল্লিক ঝালকাঠি জেলার কাঠালিয়া থানার চেচরি গ্রামের মৃত. কালু মল্লিকের ছেলে।

সোনারগাঁ থানা পুলিশসূত্রে জানা গেছে, উপজেলার কাচঁপুর ইউনিয়নের সোনাপুর এলাকায় কুদ্দুস মিয়ার তৃতীয় তলা ভাড়া নিয়ে গ্রেফতারকৃত শিক্ষক মাওলানা মোশারফ মল্লিক ও তার স্ত্রী ফয়েজীয়া কওমীয়া নুরানী হাফেজীয়া মাদরাসা ও এতিমখানা গড়ে তোলেন। বিভিন্ন প্রয়োজনে শিক্ষকের স্ত্রী বাইরে গেলে মেয়ে শিক্ষার্থীদের পড়া না পাড়ার অজুহাতে তার কক্ষে ডেকে নিয়ে যান। ওই কক্ষে নিয়ে গিয়ে সে শিক্ষার্থীদের যৌন হয়রানী করেন। গত মঙ্গলবার দুপুরে তার স্ত্রী জরুরী প্রয়োজনে বাইরে গেলে ভূক্তভোগী ৭বছর বয়সী শিশু শিক্ষার্থীকে পড়া না পাড়ার অজুহাতে তার নিজ কক্ষে ডেকে নিয়ে দরজা বন্ধ করে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। পরে ঘটনাটি কাউকে না জানানোর হুমকি দিয়ে শিশু শিক্ষার্থীকে বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়। পরবর্তীতে ওই শিক্ষার্থী বাড়ি গিয়ে বিষয়টি তার বাবা মাকে জানালে তারা মাদ্রাসায় গিয়ে স্থানীয়দের কাছে বিচার দাবি করেন। পরবর্তীতে মিমাংসা না করায় ওই শিক্ষার্থীর মা বাধ্য হয়ে নিজে বাদী হয়ে মাওলানা মোশারফ মল্লিককে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন।

এ ব্যাপারে সোনারগাঁ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম জানান, ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে মাদ্রাসা শিক্ষককে গ্রেফতার করে নারায়ণগঞ্জ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। এ শিক্ষকের বিষয়ে এলাকাবাসী এ সংক্রান্ত একাধিক অভিযোগ করেছেন।

Please follow and like us: