আড়াইহাজারে জুতা পায়ে বেদিতে উঠে সেলফির হিড়িক

আড়াইহাজার প্রতিনিধি: নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে গতকাল রোববার সারা দেশের মতো নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে অমর একুশে ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত হয়েছে। কিন্তু ভাষাশহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে গিয়ে অনেকেই আড়াইহাজার উপজেলা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের পবিত্রতা নষ্ট করেছে। তারা জুতা পায়ে বেদিতে উঠেছে।

অনেকেই আবার মোবাইলে সেলফি তুলতে ব্যস্ত ছিলেন। শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে আসা মানুষের এই কাণ্ডজ্ঞানহীন আচরণে হতবাক সাধারন মানুষ। পাশাপাশি তাঁরা এ ক্ষেত্রে আয়োজকদের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্নও তুলেছেন। শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা জানানোর এ আয়োজনে ছিলো আড়াইহাজার উপজেলা প্রশাসন।

শনিবার দিবাগত রাত ১২টা ১ মিনিটে শহীদ ভেদিতে ফুলের তোড়া দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদনের মধ্যদিয়ে দিনের কর্মসূচি শুরু হয়। সকাল সাড়ে ৯টার দিকে গিয়ে দেখা গেছে, বিশৃঙ্খল পরিবেশের মধ্যদিয়ে লোকজন ফুলের তোড়া দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করছিলেন।

এ সময় অনেককেই শহীদ মিনারের বেদিতে জুতা পায়ে উঠতে দেখা যায়। শহীদ মিনারে দায়িত্বরত দুই আসনার সদস্যকে পায়ে জুতা নিয়ে শহীদ ভেদিতে উঠে ছবি তুলতেও দেখা গেছে।

এছাড়াও সাদা শার্ট পরিহিত এক যুবককে হাতে ক্যামেরা ও পায়ে জুতা পড়ে মুল ভেদিতে উঠে দীর্ঘক্ষণ ধরে ভিডিও করতে দেখা গেছে। সেখানে উপস্থিত অনেকের চোখেই এমন দৃশ্য নজড়ে আসে। অনেকেই এনিয়ে আক্ষেপ প্রকাশ করেছেন সাংবাদিকদের কাছে।

অনেকেই বলেন, বাংলা ভাষার জন্য যারা ১৯৫২ সালে শহীদ হয়েছেন। দিবসটি যেখানে আন্তর্জাতিকভাবে পালন করা হচ্ছে। ভাষা শহীদদের প্রতি আমাদের গভীরভাবে শ্রদ্ধা থাকা উচিৎ। ভাষা শহীদদের প্রতি সম্মান জানাতে এসে পায়ে জুতা নিয়ে বেদিতে প্রবেশ করা কোনো ভাবেই মেনে নেয়া যায় না।

অনেকেই অভিযোগ করেন, পর্যাপ্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কিংবা স্বেচ্ছাজীবি (বলানটিয়ার) নিয়োজিত করা হলে এমন দুঃখ জনক ঘটনা ঘটতো না। অনেকেই দাবি করেন, যারা এর আয়োজন করেছেন। তাদের গাফিলতির কারণেই ভাষা শহীদদের প্রতি এমন অসম্মান করা হয়েছে। যাদের অবহেলায় এমনটা ঘটেছে।

স্থানীয় সংস্কৃতিকর্মীরা বলেন, বেদিতে জুতা পায়ে সেলফি তোলার মতো কর্মকাণ্ড খুবই দুঃখজনক। দিন দিন একুশ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার মৃত্যু হচ্ছে।

এ সময় উপস্থিত অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, শহীদ মিনারের পবিত্রতা রক্ষার ক্ষেত্রে আয়োজক ও পুলিশের উদাসীনতা প্রশ্নবিদ্ধ করেছে শ্রদ্ধা জানানোর সব আয়োজন। প্রশাসন এ ব্যর্থতার দায় কোনোভাবেই এড়াতে পারে না।

তবে শহীদ মিনারের পবিত্রতা নষ্ট হওয়ার জন্য সাধারণ মানুষের অসচেতনতাকে দায়ী করেছেন আড়াইহাজার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নজরুল ইসলাম।

আড়াইহাজার উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহাগ হোসেন বলেন, জুতা পায়ে বেদিতে উঠা কোনভাবেই ঠিক নয়। এটা ভাষা ও ভাষাশহীদদের প্রতি অমর্যাদাকর। বিষয়টি আমার জানা নেই। আমি খতিয়ে দেখছি। অভিযুক্তদের চিহ্নিত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Please follow and like us: