আলপনায় একুশের চেতনা

রুদ্রবার্তা২৪.নেট: আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলে রঙ তুলি হাতে চাষাঢ়ায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণ, পাশের রাস্তায় মনের মাধুরি মিশিয়ে আলপনা ও চিত্রকর্ম আঁকছেন নারায়ণগঞ্জ চারুকলা ইনস্টিটিউটের শিক ও অর্ধশতাধিক প্রাক্তন, বর্তমান শিার্থীরা। শিার্থীরা আলপনায় তুলির আঁচড় দিচ্ছেন। রং তুলিতে শহীদ মিনার ও সামনের সড়ক সেজেছে বর্ণিল সাজে। এই সাজ দেখতে ভিড় করছেন পথচারীরা।
শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) বিকেল থেকেই চাষাঢ়া কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনের সড়কে আলপনা আঁকেন তারা। পরে শহীদ মিনারের সামনের অংশ আলপনা করেন।
সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, রাস্তায় আলপনায় নানান রঙের খেলা। তুলির আঁচড়ে রাস্তায় শিল্পের রূপ দিচ্ছেন কয়েকজন শিশু ও অভিভাবকরা। উৎসাহী নগরবাসী তুলছেন ছবি।
চারুকলা ইনস্টিটিউটের এক শিক বলেন, আমরা ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা থেকেই এ আলপনার কাজ করছি। ২১শে চেতনাকে মানুষের কাছে পৌছে দিতে আমাদের এই আয়োজন। যাদের বিনিময়ে আমরা আজ বাংলা ভাষা এবং লাল সূর্য পেয়েছি পরবর্তী প্রজন্মের কাছে আমরা একুশের চেতনাকে নিয়ে যেতে চাই। যেন তারা এটাকে হৃদয়ে ধারণ করতে পারে।
প্রাক্তন শিার্থী রাজীব শীল বলেন, প্রতিবছরই চারুকলা ইনস্টিটিউটের প্রাক্তন ও বর্তমান শিার্থীরা এই কাজটি করে থাকে। বাঙালির সকল প্রাণের উৎসবে মিশে আছে আলপনার রং। আর ২১শে ফেব্রুয়ারি শহীদ মিনারে আঁকা আলপনা আমাদের আরও বেশি আকৃষ্ট করে ভাষার প্রতি, ভাষার জন্য আত্মত্যাগকারীদের প্রতি। তাদের প্রতি জানাই বিনম্র শ্রদ্ধা। একুশ মানে ভাষা শহীদদের হারানোর শোক, একই সাথে একুশ মানে মাতৃভাষাকে অর্জনের গৌরব।
গত দুইদিন নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের পরিচ্ছন্ন কর্মীদেরা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার পানি দিয়ে ধুয়ে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করেন। এ সময় মিনারে লাগানো পোস্টার, ফেস্টুন সরিয়ে নেয় তারা। একই সঙ্গে পরিষ্কার করা হয় বিজয়স্তম্ভসহ শহরের গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনাগুলো। রবিবার (২১ ফেব্রুয়ারি) ভোর থেকে মহান ভাষা সৈনিকদের স্মরণে হবে প্রভাত ফেরি এবং শহীদ বেদিতে ফুল দিয়ে জানানো হবে শ্রদ্ধা।

Please follow and like us: