পরিবার, সমাজ ও দেশের উন্নয়নে নারীও অংশীদার : মন্ত্রী গাজী

রুদ্রবার্তা২৪.নেট: বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী বীরপ্রতীক বলেছেন, বাংলাদেশের নারীরা খুব কর্মঠ, মেধাবী ও সাহসী। এ দেশের নারীরা কর্মগুণে ব্যাপক প্রশংসা অর্জন করেছে। নারীদের যত বেশি কর্মে নিয়োজিত করা হবে, ততই দেশের উন্নতি ত্বরান্বিত হবে।

একবিংশ শতাব্দীতে নারী শুধু বধূ, মাতা, কন্যা নয়; পরিবার, সমাজ ও দেশের উন্নয়নে নারীও অংশীদার। পুরুষের পাশাপাশি দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার কারিগর। নারীর অগ্রযাত্রা সহজ করতে সরকারের অনেক উদ্যোগ, নীতিমালা আইনকানুন আছে। নারী এগিয়ে চলেছে, চলবে।

শুক্রবার (১২ ফেব্রুয়ারী) বিকালে রূপগঞ্জ উপজেলার ভোলানাথপুর এলাকায় পূর্বাচল ক্লাবে পূর্বাচল লেডিস ক্লাবের উদ্যোগে পিঠা উৎসব ও তিন দিন ব্যাপি মেলা শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। এর আগে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী বীরপ্রতীক এই মেলার উদ্বোধন করেন।

পূর্বাচল লেডিস ক্লাবের সভাপতি সৈয়দা ফেরদৌসী আলম নীলার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, শিল্পমন্ত্রী নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন, মৎস ও পশু সম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম, সংসদ সদস্য মেহের আফরোজ চুমকী, প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী সেলিনা খাতুন, রূপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী মহিলালীগের সভাপতি ও তারাবো পৌরসভার মেয়র হাসিনা গাজী, ম্যাক ফার্নিচার লিমিটেডের চেয়ারম্যান মনিরুল ইসলাম মনির, পিঠা উৎসব কমিটির আহবায়ক রুকসানা কবির কাকলীসহ অনেকে।

অনুষ্ঠানে শিল্পমন্ত্রী নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন এবং মৎস ও পশু সম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেন, নারীরা এখন আর পিছিয়ে নাই। সর্ব ক্ষেত্রেই নারীরা এগিয়ে

গেছে। আমাদের সন্তানরা যখন দেশীয় ইতিহাস ঐতিহ্য ভুলতে বসেছে ঠিক সেই মুহূর্তে এই পিঠা উৎসব অবশ্যই প্রসংশনীয়। বাঙালির এই চিরন্তন ঐতিহ্য পিঠা নগর জীবনের আধুনিকতার ছোঁয়া আর পিৎজা ও ফার্স্ট ফুডের ভিড়ে হারিয়ে যেতে বসেছে।

পিঠা মেলায় দলমত নির্বিশেষে বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষের মিলনমেলা দেখে অনেক ভালো লাগছে। এই ধরনের উদ্যোগ বাস্তবায়নে পূর্বাচল লেডিস ক্লাবকে সব ধরনের সহযোগিতা করবেন বলেও আশ্বাস দেন তারা।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে রূপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী মহিলালীগের সভাপতি ও তারাবো পৌরসভার মেয়র হাসিনা গাজী বলেন, নারীকে প্রমাণ করতে হবে, নারী পারে, নারী পেরেছে এবং আগামীতেও নারী পারবে। এই মূলমন্ত্রে দীক্ষিত হয়েই নারীকে সামনে চলার সিঁড়ি রচনা করতে হবে। আর এর জন্য নারীর দরকার, কেবল দৃঢ়তা আর যোগ্যতা।

পাশাপাশি সমাজ ও পরিবারের দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তন-ই নারীকে তার যোগ্য সম্মান দিতে পারে। একটি সুন্দর, শান্তিময়, সমৃদ্ধ দেশ গড়ার কাজে পুরুষের সমান অবদান রাখার প্রত্যয় নিয়ে নারীরা এগিয়ে চলছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের নারীরা সর্বক্ষেত্রে এগিয়ে যাচ্ছে।

উদ্বোধন ও আলোচনা পর মেলার স্টল গুলো ঘুরে দেখেন আমন্ত্রিত অতিথিরা। অতিথিরা আয়োজকদের ভূয়সী প্রশংসা করেন। সব মিলিয়ে অনুষ্ঠানটি ছিল পুরো বাঙালিয়ানায় পরিপূর্ণ।

Please follow and like us: