নারায়ণগঞ্জে ৭৯ ইটভাটা অপসারণের সিদ্ধান্ত

রুদ্রবার্তা২৪.নেট: ক্রমাগত বাতাসের পরিস্থিতি ঝুঁকিপূর্ণ মাত্রা ধারণ করায় ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুরের প্রায় ৪০০টি অবৈধ ইটভাটা অপসারণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে পরিবেশ অধিদফতর। এর মধ্যে নারায়ণগঞ্জেই রয়েছে ৮৯টি।
পরিবেশ অধিদফতরের সূত্র জানায়, করোনাভাইরাসের কারনে দীর্ঘদিন কারখানা ও গাড়ি চলাচল বন্ধ থাকায় নারায়ণগঞ্জসহ সারাদেশেই বাতাসের গুণগত মানের উন্নতি হয়েছিল। তবে, শীত মৌসুম শুরুর সঙ্গে সঙ্গে বাতাসের মান খারাপ হতে শুরু করে। একযোগে নারায়ণগঞ্জ ও তার আশেপাশের সকল জেলায় ইটভাটা চালু হওয়ায় বাতাসের মান ভয়াবহ মাত্রায় দূষিত হচ্ছে। মূলত বাতাসে সবচেয়ে বেশি তিকর উপাদান ছড়িয়ে থাকে ইটভাটা। ফলে শুকনো মৌসুমে ইটভাটা বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে পরিবেশ অধিদফতর।
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্স (একিউআই) অনুযায়ী এ সূচি অনুযায়ী বাতাসের মান ০-৫০ ভালো, ৫১-১০০ মধ্যম, ১০১-১৫০ সতর্কাবস্থা, ১৫১-২০০ অস্বাস্থ্যকর, ২০১-৩০০ খুব অস্বাস্থ্যকর এবং ৩০১-৫০০ অত্যন্ত অস্বাস্থ্যকর। সোমবার (১৮ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জের বাতাসের মান ছিল ২২৪ একিউআই যা খুব অস্বাস্থ্যকর হিসেবে বিবেচিত।
চিকিৎসা বিশেষজ্ঞদের মতে, বাতাসের এমন দূষণ জেলার বাসিন্দাদের স্বাস্থ্যঝুঁকি ক্রমাগত বাড়িয়ে দিচ্ছে। এতে করে ফুসফুসের রোগ সহ নানান বায়ু দূষণ জনিত রোগ বেড়ে চলছে। ধুলিকণার ফলে শ্বাসযন্ত্রের সিস্টেম মারাত্বকভাবে াতগ্রস্ত হয়। এছাড়া অ্যাজমা, ভাইরাস, ব্যাকটেরিয়াসহ নানা সংক্রমনের কারণ হতে পারে।
পরিবেশ অধিদফতর পরিচালক মো. জিয়াউল হক জানান, ঢাকা ও তার আশেপাশে অবস্থিত ৩০টি অবৈধ ইটভাটা ভেঙে ফেলা হয়েছে। এই শহরের আশেপাশে (ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর) আরও ৪০০টি অবৈধ ইটভাটা অপসারণ করা হবে। আগামী দুই থেকে তিন মাসের ভেতর ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে এসব বন্ধ করা হবে।
নারায়ণগঞ্জ পরিবেশ অধিদফতরের সহকারী পরিচালক মো. আব্দুল গফুর বলেন, আমরা এমন নির্দেশনা অনেক আগেই পেয়েছি। সেই ধারাবাহিকতা অনুযায়ী এরই মধ্যে ১০ টি ইটভাটায় আমরা অভিযান পরিচালনা করেছি। আমাদের আরো অনেকগুলো অভিযান পরিচালনার পরিকল্পনা আছে। তবে ঠিক কতগুলো ইটভাটায় অভিযান চালাবো তা এই মুহূর্তে বলতে পারছি না। তথ্যটি আমার দেখে তারপর বলতে হবে।
একই বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ পরিবেশ অধিদফতরের উপপরিচালক আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, আমাদের কাছে মোট ৮৯ টি অবৈধ ইটভাটার তালিকা রয়েছে। অভিযান পরিচালনা হয়েছে ১০টিতে। বাকি রয়েছে ৭৯টি ইটভাটা। পর্যায়ক্রমে সেগুলোতেও অভিযান চালাবো আমরা। মূলত ইটভাটাগুলোই সবচেয়ে বেশি পরিবেশ দূষণ করে। আর নারায়ণগঞ্জে অবৈধ ইটভাটার পরিমাণ বক্তাবলীর দিকে বেশি। সেসব বন্ধে আমাদের অভিযান অব্যহত থাকবে।

Please follow and like us: