পিটিয়ে প্রবাসীর হাত ভাঙলেন আওয়ামী লীগ নেতা

স্টাফ রিপোর্টার: রাজবাড়ীর পাংশার পাট্ট ইউনিয়নে চেয়ারম্যান আব্দুর রব মুনা বিশ্বাস ও তার সহোযোগীরা মিলে এক প্রবাসীকে চেয়ার ও লোহার রড দিয়ে বেদম প্রহার করেছেন। এতে প্রবাসী সহিদ প্রমানিক গুরুতর জখম হয় এবং তার একটি হাত ভেঙে যায়।

আহত সহিদ প্রমানিক বর্তমানে পাংশা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এ ঘটনায় সোমবার সহিদ প্রমানিক চেয়ারম্যান মুনা বিশ্বাসসহ তিনজন এবং অজ্ঞাতনাম তিন-চারজনকে আসামি করে পাংশা মডেল থানায় একটি মামলা করেছেন।
সহিদ প্রমানিক বলেন, আমার প্রতিবেশী সন্তোষ মন্ডল গত শনিবার সকালে কথা আছে বলে তার পুকুর চালায় আমাকে ডেকে নিয়ে যান। ওই পুকুর চালায় বিবাদীরা আগেই উপস্থিতি ছিল এবং আমাকে বিনা কারণে হুমকি ধমকি দেয়। এই কারণে আমার সঙ্গে তাদের কথা কাটাকাটি হয়। তারা বলেন, তুই আমার সঙ্গে তর্ক করিস। তোর ছেলের আর তোর কথাবার্তা ভালো নয়।

তারপর একপর্যায়ে পাট্টা ইউনিয়নের চেয়াম্যান আব্দুর রব মুনা বিশ্বাস প্রথমে বসার চেয়ার দিয়ে আমাকে বাড়ি মারে। এতে আমি মাটিতে পড়ে যাই। চেয়ারম্যান আমাকে পিটিয়ে পরপর দুটি চেয়ার ভেঙে ফেলেন।

পরে চেয়ারম্যানের এক সহোযোগী মোটরসাইকেল থেকে রড এনে আমাকে এলোপাথাড়ি পেটাতে থাকে। এতে আমি রক্তাক্ত যখম হই এবং তারা বাড়ি দিয়ে আমার একটি হাত ভেঙে ফেলে। তারপর আমাকে দুইটা পিস্তল দেখিয়ে অনেক ভয়ভীতি দেখায়।

এ মামলা সর্ম্পকে পাংশা মডেল থানার ওসি সাহাদত হোসেনের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, থানায় মামলা রজু হয়েছে। আসামিদের ধরতে জোর তৎপরতা চলছে।

চেয়ারম্যান আব্দুর রব মুনা বিশ্বাসকে ফোন দিলে তিনি রিসিভ করে কথা বলেননি।

Please follow and like us: