পল্লবী থানায় বিস্ফোরণের দায় স্বীকার আইএসের, সিটিটিসির দাবি ‘মিথ্যা’

ইসলামিক স্টেট (আইএস) রাজধানী ঢাকার মিরপুরের পল্লবী থানায় বিস্ফোরণের দায় স্বীকার করেছে। মার্কিন সাইট ইন্টেলিজেন্স গ্রুপের পরিচালক রিটা কাটজ এমনটাই জানিয়েছেন। তবে আইএসের এই দাবি মিথ্যা বলে জানিয়েছে পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিট (সিটিটিসি)।

গতকাল বুধবার মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী আইএসের ওয়েবসাইটের একটি ছবি টুইটে প্রকাশ করে রিটা এই দাবি করেন। টুইটে তিনি লিখেছেন, ‘বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার একটি পুলিশ সদর দপ্তরে বিস্ফোরণের ঘটনায় দায় স্বীকার করেছে আইএস।’

২০১৯ সালের আগস্টের পর এটাই ঢাকায় আইএসের প্রথম হামলা বলে উল্লেখ্য করেন তিনি। ঈদ-উল-আযহার আগে নতুন লড়াইয়ের (অ্যাট্রিশন ওয়ারফেয়ার) প্রচারণার অংশ হিসেবে ঢাকায় এই হামলা চালানো হয়েছে বলে দাবি করেছে আইএস।

এ বিষয়ে সিটিটিসি ডেপুটি কমিশনার সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘আইএস এর আগেও এই ধরনের মিথ্যা দাবি করেছে। এটা ওই প্রক্রিয়ারই একটি অংশ ছাড়া আর কিছুই না। আমরা প্রাথমিক তদন্তে এখন পর্যন্ত অপরাধমূলক উদ্দেশ্যেই এমনটা ঘটেছে বলে জানতে পেরেছি। ঘটনাটি আরও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।’
সিটিটিসি ইউনিটের অপর এক কর্মকর্তা জানান, আইএস কেবল এই ঘটনার সুযোগ নিয়ে গণমাধ্যমে প্রচারণা পেতে চাইছে। বুধবার সকালে ‘ওজন মেশিন’ বিস্ফোরণে পল্লবী থানার চার পুলিশ কর্মীসহ পাঁচ জন আহত হন।

ঢাকা মহানগর পুলিশের উপকমিশনার (মিডিয়া) ওয়ালিদ হোসেন বলেন, ‘পল্লবী থানায় গতকাল আগ্নেয়াস্ত্র এবং ওজন মেশিনসহ তিন জনকে আটক করে পুলিশ। ওজন মেশিনটি ডিউটি অফিসারের ঘরে রাখা হয়, যা সকালে বিস্ফোরিত হয়ে পাঁচ জন আহত হয়েছেন।’

গতকাল বুধবার ভোরে এই ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় চার পুলিশসহ পাঁচজন আহত হয়েছেন। তাদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। খবর পেয়ে ডিএমপির বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিটের সদস্যরা ঘটনাস্থলে ছুটে যান।

বিস্ফোরণে আহতরা হলেন—পল্লবী থানার ওসি তদন্ত পুলিশ পরিদর্শক ইমরান (৪৮), এসআই সজীব (৩০), পিএসআই অঙ্কুশ (২৮), পিএসআই রুমির (২৮) আহত হয়েছেন। এছাড়া রিয়াজ (২৮) নামে একজন আহত হয়েছেন।

Please follow and like us: