৩০ মনের ‘ডিপজল’কে দেখতে হাটে ভিড়

রুদ্রবার্তা২৪.নেট: পবিত্র ঈদুল আযহাকে কেন্দ্র করে নারায়ণগঞ্জে জমে উঠতে শুরু করেছে পশুর হাটগুলো। বিভিন্ন জেলা থেকে বেপারীরা নিয়ে এসেছে নানা ধরণ ও আকারের আকর্ষনীয় কুরবানির পশু। যার মধ্যে সিদ্ধিরগঞ্জ ২ নম্বর ঢাকেশ্বরী অস্থায়ী পশুর হাটের একটি গরু নজর কেড়েছে দর্শনার্থীদের। বেপারী সেলিম খান জানান, ৩০ মন ওজনের এই গরুটির নাম ‘ডিপজল’। অভিনেতার নামে গরুর নাম হওয়ায় আকর্ষণ যেন একটু বেশির সবার মধ্যে। ফলে ডিপজলের আশেপাশে সারাক্ষণ ভিড় করছেন দর্শনার্থীরা।
সোমবার (২৭ জুলাই) বিকেলে ২ নম্বর ঢাকেশ্বরী অস্থায়ী পশুর হাটে সরেজমিনে দেখা যায়, হাটের ৩ নম্বর কাউন্টার বরাবর দর্শনাথীদের ভিড়। শিশু থেকে শুরু করে সকল বয়সের মানুষের উপস্থিতি সেখানে। তাদের সকলের দৃষ্টি ডিপজলের দিকে। নাম ডিপজল হলেও তার স্বভাব খুব শান্ত এবং আরাম প্রিয়। দর্শনার্থীদের ভিড় থাকলেও সে তার বিশাল আয়তাকার শরীর নিয়ে দাঁড়াতে রাজি না। তবু কিছুক্ষণ পরপর তাকে টেনে তুলছেন বেপারী সেলিম।
ডিপজলের সামনে দাড়িয়ে ছিলেন সোলায়মান সরকার। কথা হয় তার সাথে। তিনি বলেন, ‘শুনেছি হাটে ডিপজল নামে অনেক বড় একটা গরু এসেছে। তাই একবার দেখতে এলাম। দেখলাম ভালোই।’
দশ বছর বয়সী রিয়ান তার বন্ধুদের সঙ্গে এসেছে গরু দেখতে। তবে ঘুরে ঘুরে বারবার ডিপজলকেই দেখছে তারা। রিয়ান এ প্রতিবেদককে বলেন, ‘সকালে গরু দেখতে আসছিলাম। ডিপজলকে দেখে আমার অনেক ভালো লাগছে। তাই এখন আবার বন্ধুদের নিয়ে আসছি। গরুটা অনেক সুন্দর আর অনেক বড়।’
মাছ ও পশু খামারী সেলিম জানান, গত ৩ বছর যাবৎ সিরাজগঞ্জের নিজ বাসায় ডিপজলকে লালন-পালন করছেন তিনি। ৩ বছর আগে তিনি যখন ডিপজলকে ক্রয় করেন তখনও গরুটি বেশ বড় ও মোটা ছিল। এর কালো রঙের জন্য সেলিম গরুটির নাম রাখেন ডিপজল।
সেলিম বলেন, ‘এ বছর ২৩টি গরু নিয়ে এসেছি। যার মধ্যে সবচেয়ে দামি ডিপজল। এর দাম ধরেছি সাড়ে ৮ লাখ টাকা। অনেকেই আসছে, দেখছে। দাম হাকছে। এ পর্যন্ত দাম উঠেছে ৪ লাখের মত। কিন্তু এর কমে আমি ডিপজলকে দিতে রাজি না।’
তিনি আরো বলেন, ‘করোনার কারণে গরুর খাদ্য অনেক দামে কিনতে হয়েছে আমাদের। তাই প্রত্যেক গরুর পিছনে খরচ গেছে তুলনামূলক অনেক বেশি। কিন্তু সে অনুযায়ী দাম বলছে না কেউ। কিন্তু বিক্রি তো করতেই হবে। লাভের আশা নেই, তবু পশুগুলো বিক্রি করতে তো হবে। কম আর বেশি।’

Please follow and like us: