অবৈভাবে চালানো সেই হাট ৪০ হাজারে পেলেন আইয়ুব আলী

রুদ্রবার্তা২৪.নেট: এতদিন ইজারা ছাড়াই অবৈধভাবে সদর উপজেলার কাশীপুর ইউনিয়ন ভূমি অফিস সংলগ্ন হাটটি চালাচ্ছিলেন ইউনিয়ন পরিষদের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আইয়ুব আলী। এদিকে রোববার (২৬ জুলাই) দুপুরে হাটটির দরপত্র উন্মুক্ত করা হলে ৪০ হাজার টাকায় ইজারা পান আইয়ুব আলী। এই হাটের সরকারি মূল্য ছিল ৩৫ হাজার টাকা।
সদর উপজেলা সূত্রে জানা যায়, সদর উপজেলায় ১১ হাটের দরপত্র আহ্বান করা হয়। কাশীপুর ইউনিয়নের বড় মসজিদ সংলগ্ন হাটের জন্য দরপত্র জমা দেন নাজমুল হাসান সজল, সাখাওয়াত হোসেন বাবু ও আইয়ুব আলী। গত ২১ জুলাই দরপত্র উন্মুক্ত করা হলে দেখা যায়, তিনজনের কেউই দরপত্রে টাকার অঙ্ক বসাননি। পুনরায় এই হাটটির জন্য দরপত্র আহ্বান করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নাহিদা বারিক। তবে ইজারা না পেলেও ২১ জুলাই থেকে অবৈধভাবে হাট পরিচালনা করছিলেন আইয়ুব আলী। তার সাথে সহযোগী হিসেবে রয়েছেন অন্য দরদাতা সাখাওয়াত হোসেন বাবু। অবৈধভাবে হাট পরিচালনার বিষয়ে গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হলেও নিরব ভূমিকায় ছিল প্রশাসন। অথচ একই অভিযোগে গোগনগর ইউনিয়নের বাড়িরটেক এলাকার হাটটির দরপত্র বাতিল করে দেওয়া হয়। ওই হাট ইজারা ছাড়াই পরিচালনা করছিলেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা দেলোয়ার হোসেন।
এদিকে ২৬ জুলাই কাশীপুর ইউনিয়নের একমাত্র হাটটির দরপত্র উন্মুক্ত করা হয়। পূর্বের তিনজনই দরপত্র জমা দেন উপজেলায়। সরকার নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে মাত্র ৫ হাজার টাকা বেশি দর দিয়ে ইজারা পান আইয়ুব আলী। শেষমেষ অবৈধভাবে পরিচালনা হাটের বৈধতা নিলেন তিনি।

Please follow and like us: