রূপগঞ্জের চনপাড়ায় মাদক ব্যবসায়ীদের সংঘর্ষে ২০ জন আহত

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার চনপাড়া পুর্নবাসন কেন্দ্র।এটি মানুষের কাছে চনপাড়া বস্তি নামেও পরিচিত। রাজধানী ঢাকার মাদকের ট্রানজিট রুট হিসেবে ব্যবহার হচ্ছে চনপাড়া।

করোনাকালীন সময়েও থেমে নেই মাদকের বিস্তার।কুমিল্লা, গাজীপুরসহ আশপাশের এলাকা থেকে চনপাড়া পুর্নবাসন কেন্দ্র এলাকা থেকে মাদক ব্যবসায়ীরা মাদক কিনে নিয়ে যায়। পরে তা রাজধানী ঢাকাসহ আশপাশের এলাকায় নিয়ে এ মাদক বিক্রি হয়।

চনপাড়া পুর্নবাসন কেন্দ্র এলাকায় মাদকের অনেক বড় বড় ডিলার রয়েছে। এর মাদক বিক্রির আধিপত্যকে কেন্দ্র করে চনপাড়া পুর্নবাসন কেন্দ্র এলাকায় দুই গ্রুপের দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

এ সংঘর্ষের ঘটনায় দু’পক্ষের অন্তত ২০ জন আহত হয়েছে বলে জানা গেছে। মঙ্গলবার ও বুধবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত কয়েক দফায় দু’গ্রুপের মাঝে সংঘর্ষ হয়েছে।

স্থানীয় ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, উপজেলায় চনপাড়া পুর্নবাসন কেন্দ্র এলাকার ২নং ওয়ার্ডে মাদক বিক্রির আধিপত্যকে কেন্দ্র করে মৃত ইউপি সদস্য বিউটি আক্তার কুট্টির মেয়ে পারভীন আক্তারের গ্রুপের সঙ্গে ইউপি সদস্য বিউটি আক্তার কুট্টি হত্যা মামলার আসামি জয়নাল, রাজা, সিটি শাহীন গ্রুপের মাদক বিক্রির আধিপত্য নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল।

এর জের ধরে মঙ্গলবার সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত বিউটি আক্তার কুট্টির পারভীন আক্তারের গ্রপের সদস্য গন্ডা বিল্লাল, শাহীন, ফেন্সি ফারুক, মো আলী, ফারুক, রাজুর সঙ্গে জয়নাল গ্রুপের রাজা, সিটি শাহীনসহ তাদের লোকজনের সঙ্গে কয়েক দফায় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।
পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। বুধবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত পুনরায় কয়েক দফায় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এসময় উভয়পক্ষ একে অপরকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করেন।

সংঘর্ষের ঘটনায় উভয়পক্ষের কাবিলা আনোয়ার, ইয়াবা আনোয়ার, শিপন, আবুল, আলমগীর, সালু, বাদল, জিহাদ, শিপন, হযরত, রাব্বিসহ প্রায় ২০ আহত হয়েছেন। এ নিয়ে চনপাড়া পুর্নবাসন কেন্দ্র এলাকায় সাধারণ মানুষের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

রূপগঞ্জ থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহমুদুল হাসান বলেন, বর্তমানে ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। সংঘর্ষের ঘটনায় কোনো পক্ষকে ছাড় দেয়া হবে না।

Please follow and like us: