বন্দরে ১০ কিলোমিটার সড়ক বন্ধ করে দিয়েছে যুবকেরা

নারায়ণগঞ্জ বন্দর উপজেলার ১০ কিলোমিটার সড়ক বন্ধ করে দিয়েছে এলাকার যুবকেরা। ওই সময় সড়কের কোন মতে যানবাহন চলাচল করতে না পারে সে জন্য রাস্তার প্রতি প্রতি মোড়ে বাশঁ উচু করে রাখা হয়েছে। এর ফলে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সরকারের নিদের্শণা কার্যকর শুরু করেছে এলাকার যুবকেরা।
সরেজমিনে দেখা গেছে, বন্দর উপজেলার নাসিক ২০নং ওয়ার্ডের সোনাকান্দা যুবক সমাজ রাত ৮ টা থেকে বাঁশ ফেলে সড়ক বন্ধ করে দেয়। এসময় টহল পুলিশ তাদের সমর্থন করে রাস্তা না থেকে যার যার বাসায় অবস্থানে আহবান জানায়।
এর পর থেকে দড়ি সোনাকান্দা, মাহমুদনগর, ডকইয়ার্ড মোড়, নোয়াদ্দা, ত্রিবেণী পুল, মদনগঞ্জ বাস স্ট্যান্ড, শান্তিনগর, কলাগাছিয়া, ফরাজিকান্দা, বাবু পাড়া, বন্দর ফাঁড়ি এলাকা, গালর্স স্কুল মোড়, বন্দর বাজার, সিরাজদৌল্লা সড়ক, নবীগঞ্জ, রসূলবাগ, লক্ষণখোলা ও উত্তর-দক্ষিণ লক্ষণখোলা এর প্রধান প্রধান সড়কে বাশঁ, নাসিকের ময়লা বাক্স ও বিভিন্ন সরঞ্জাম দিয়ে বন্ধ করে দেয়। এর ফলে অনেক শ্রমজীবী মানুষ বাড়ী ফিরতে কষ্ট লাগব হতে হয়, কিন্তু যুবকদের এমনতা সিদ্ধান্ত অনেকে শ্রমজীবী মানুষ সমর্থন দিয়েছে।
সোনাকান্দার যুব সমাজের ফয়েজ জানান, বিশ্ব নোভেল করোনা ভাইরাস নিয়ে যখন মানুষ চিন্তিত। তখন বাংলাদেশ এর প্রভাব ইতোমধ্যে পড়তে শুরু করেছে। প্রথমে বন্দরের রসূলবাগের এক নারী মৃত্যু ইতিমধ্যে দেশের আলোচনা নারায়ণগঞ্জ জেলা হয়ে পড়েছে। আমাদের এই বন্দরে শ্রমজীবী মানুষ প্রচুর প্রতিদিন লাখ লাখ মানুষ নদী পারাপার করে থাকে। সরকারের কঠোর সিদ্ধান্তের কারণে অনেক কম কমতে শুরু করেছে। এখন আরো কমতে শুরু করেছে। আমরা চাই, আমাদের এলাকার করোনা প্রভাবমুক্ত রাখা। আমরা শুরু করলাম, এখন বন্দরের সকল এলাকার যুবকরা একই রকম শুরু করবে আশা রাখি।
তিনি আরো বলেন, বাড়ী বাড়ীতে গিয়ে নর-নারী ও শিশু-কিশোর রাস্তা আসতে মানা করা হচ্ছে। সাথে সাথে প্রতি ঘন্টা ঘন্টায় নাসিকের উদ্যোগে এলাকা মাইকিং হচ্ছে।
উল্লেখ্য, করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে নারায়ণগঞ্জের বন্দরে এক নারীর মৃত্যুর ঘটনায় ২৩নং ওয়ার্ডের রসুলবাগ এলাকা লকডাউন করেছে প্রশাসন। করোনা ভাইরাসের বিস্তার রোধে শুক্রবার ৩ এপ্রিল রাতে বন্দর সেন্ট্রাল খেয়াঘাটে নৌ চলাচল বন্ধ করলেও ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থাতেই লকডাউনের এলাকার সামনের ঘাট দিয়ে চলাচল করছে ট্রলার। শনিবার দুপুরে বরফকল খেয়াঘাট এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে এমন দৃশ্য।

Please follow and like us: