ফতুল্লায় শিশু ধর্ষণের পর ভিডিও ধারন, ধর্ষক গ্রেপ্তার

রুদ্রবার্তা২৪.কম: ফতুল্লায় ৭ বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের পর ভিডিও ধারন করার ঘটনায় লম্পট কবির হোসেনকে (৪০) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এসময় মোবাইলে ধারনকৃত ধর্ষণের ভিডিও কবির হোসেনের কাছ থেকে জব্দ করা হয়।
শনিবার (১২ অক্টোবর) সকালে ধর্ষণের শিকার শিশুর বাবা বাদী হয়ে ধর্ষক কবির হোসেনের বিরুদ্ধে ফতুল্লা মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন।
গ্রেপ্তারকৃত কবির হোসেন চাঁদপুরের উত্তর মতলব থানার উত্তর রামপুরা এলাকার আব্দুল হান্নান ওরফে হান্নু মিয়ার ছেলে।
এর আগে শুক্রবার গভীর রাতে ধর্ষক এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় শিশুর পরিবার ও এলাকাবাসীর সহযোগিতায় পুলিশ শহরের উত্তর চাষাঢ়া হতে কবিরকে গ্রেপ্তার করে।
মামলার সূত্রে জানা গেছে, চাঁদপুরের উত্তর মতলব থানার উত্তর রামপুরা এলাকার জনৈক এক ব্যবসায়ী সপরিবারে ফতুল্লার ভূইগড়ে খোকনের বাসায় ভাড়ায় থাকেন। একই এলাকায় দোকান দিয়ে ব্যবসা করেন। তার গ্রামের ছেলে কবির হোসেনকে দোকানে কর্মচারী হিসাবে রাখেন। কবিরকে থাকার জন্য একই বাড়িতে একটি রুম ভাড়া নিয়ে দেয়া হয়। কাজ করার সুবাধে মালিকের পরিবারের সাথে সু-সম্পর্ক গড়ে উঠে কবিরের। একপর্যায়ে মালিকের ৭ বছরের শিশুর দিকে কু-নজর পড়ে।
চলতি বছরের মে মাস হতে শিশুটিকে বিভিন্ন প্রলোভনে কবির তার রুমে নিয়ে ধর্ষণ করে এবং ধর্ষণের চিত্র মোবাইলে ভিডিও ধারন করে। দীর্ঘ ৫ মাস ধরে এভাবে শিশুটিকে পর্যায়ক্রমে ধর্ষণ করে আসছিল কবির। এমনকি শিশুটিকে বিভিন্ন স্থানে বেড়াতে নিয়ে যায়। সেখানে নিয়েও কবির শিশুটির উপর পাশবিক নির্যাতন চালায়। বৃহস্পতিবার হঠাৎ কবিরের লালসার শিকার শিশুটি পুরো ঘটনা তার মাকে জানায়। পরে কবির যখন জানতে পারে শিশুটি বিষয়গুলো তার মাকে জানিয়ে দিয়েছে তখন শুক্রবার রাতে এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় এলাকাবাসীর সহায়তায় কবিরকে আটক করে পুলিশের হাতে সোপর্দ করে।
ফতুল্লা মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মোদাচ্ছের হোসেন জানান, দীর্ঘদিনের পরিকল্পনা মোতাবেক কবির হোসেন শিশুটিকে ধর্ষণ করেছে। শিশুটিকে ধর্ষণের অপরাধে কবির হোসেনকে গ্রেপ্তার করা হয়। ৭ দিনের রিমান্ড চেয়ে শনিবার দুপুরে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

Please follow and like us: