রিয়ালের নাটকীয় ড্র

ক্লাব ব্রুজ ইতিহাস গড়তে পারলো না সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে। বরং নাটকীয় ড্রয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগের দ্বিতীয় ম্যাচে শেষ রক্ষা হয়েছে রিয়াল মাদ্রিদের। দুই গোলে পিছিয়ে পড়ার পর ১০ জনের প্রতিপক্ষের সঙ্গে ২-২ গোলে ড্র করেছে ইউরোপের সাবেক চ্যাম্পিয়নরা।

প্রথমার্ধে এমানুয়েল দেনিসের দুই গোলে রিয়ালকে ভড়কে দেয় অতিথিরা। কিন্তু সের্হিয়ো রামোস ও কাসেমিরো শেষ দিকে গোল করে মান বাঁচান। অবশ্য চ্যাম্পিয়নস লিগ ইতিহাসে প্রথমবার টানা তিন ম্যাচ ২ বা তার বেশি গোল হজমের লজ্জা পেলো তারা। আর ২০০২ সালের পর প্রথমবার টানা তিনটি হোম ম্যাচ জয়ের দেখা পেলো না স্প্যানিশ জায়ান্টরা।

আগের ম্যাচে প্যারিস সেন্ত জার্মেইর কাছে ৩-০ গোলে হারের পর থেকে জিনেদিন জিদানের চাকরি সংশয়ের মধ্যে ছিল। ব্রুজের বিপক্ষে প্রথমার্ধের পারফরম্যান্স সেই সংশয় খুব একটা কাটাতে পারেনি। তবে দ্বিগুণ ব্যবধানে পিছিয়ে পড়ার পরও ঘুরে দাঁড়ানো ড্রয়ে কিছুটা সম্মান বাঁচালো তার দল। ‘এ’ গ্রুপে ব্রুজের (২) চেয়ে এক পয়েন্ট পিছিয়ে সবার শেষ দল রিয়াল। আগের ম্যাচে গ্যালাতাসারাইয়ের বিপক্ষে ড্র করেছিল ব্রুজ।

নবম মনিটে পার্সি তাউর নিচু ক্রস থেকে শট নিতে গিয়ে একটু এলোমেলো হয়ে পড়েন দেনিস। এরপরও তার দুর্বল শট থিবো কোর্তোয়াকে বোকা বানিয়ে জালে জড়ায়। অবশ্য অফসাইডের বাঁশি বাজলে ভিএআর দেখে রেফারি গোলের সিদ্ধান্ত জানান।

এমানুয়েল দেনিস জোড়া গোল করেনপিছিয়ে পড়ার পর মুহুর্মুহু আক্রমণে যায় রিয়াল। তাদের জন্য বাধা হয়ে দাঁড়ান ব্রুজ গোলরক্ষক সিমন মিগনোলেট। কাসেমিরোর হেড দারুণভাবে রুখে দেন তিনি। টনি ক্রুসের দুটি শট অল্পের জন্য গোলপোস্টের বাইরে দিয়ে যায়। ব্রুজ তাদের হতাশা আরও বাড়িয়ে দেয় বিরতির ৬ মিনিট আগে। লুকা মদরিচের বিস্ময়কর ভুল পাসে বল পান দেনিস। গোলমুখের সামনে গিয়ে হোঁচট খেলেও কোর্তোয়ার মাথার ওপর দিয়ে বল জালে পাঠান।

ক্ষুব্ধ জিদানে বিরতির পর কোর্তোয়াকে সরিয়ে গোলপোস্টের নিচে আনেন আলফোন্সে আরেওলাকে। আর নাচো ফের্নান্দেসের বদলি নামান মার্সেলোকে। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে দেনিস তৃতীয় গোলের খুব কাছে ছিলেন, কিন্তু তার শট রুখে দেন রিয়ালের বদলি গোলকিপার। অধিনায়ক রামোসের ৫৫ মিনিটের গোলে শেষ পর্যন্ত কিছুটা স্বস্তি ফিরে পায় সাবেক চ্যাম্পিয়নরা। করিম বেনজিমার ক্রস থেকে দুর্দান্ত হেডে গোল করেন স্প্যানিশ ডিফেন্ডার। অফসাইডের কারণে গোলটি বাতিল হওয়ার শঙ্কা জেগেছিল, শেষ পর্যন্ত ভিএআরে বেঁচে যায় স্বাগতিকরা।

এক গোল শোধ দিয়েও রিয়াল যখন টানা দ্বিতীয় হারের শঙ্কায় তখন তাদের ভাগ্য পাল্টে দেয় রুড ভরমারের দ্বিতীয় হলুদ কার্ড। ভিনিসিয়াস ‍জুনিয়রকে ফাউল করায় ৮৪ মিনিটে লাল কার্ড দেখেন ব্রুজ অধিনায়ক। পরের মিনিটে ক্রুসের পাস থেকে চমৎকার হেডে গোল করেন কাসেমিরো। তাতে রক্ষা হয় রিয়ালের।

প্রথম জয়ের খোঁজে আগামী ২২ অক্টোবর গ্যালাতাসারাইয়ের মাঠে নামবে রিয়াল।

Please follow and like us: