সিদ্ধিরগঞ্জে স্কুল ছাত্র হত্যা মামলায় ৭ জনের যাবজ্জীবন

রুদ্রবার্তা২৪.কম: সিদ্ধিরগঞ্জে স্কুল ছাত্র আরাফাত হত্যা মামলায় সাত আসামিকে যাবজ্জীবন কারানদন্ডের রায় দিয়েছেন আদালত। আসামিদের প্রত্যেককে ৫ হাজার টাকা করে অর্থদন্ড করা হয়েছে।
বুধবার (২৮ আগস্ট) দুপুরে অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ শেখ রাজিয়া সুলতানার আদালত এ রায় ঘোষণা করেন। রায়ে দুই আসামিকে বেকসুর খালাস প্রদান করা হয়েছে।
রায় ঘোষণাকালে দন্ডিত ৩ আসামি উপস্থিত ছিল। বাকি চার আসামি পলাতক। মামলায় ২৫ সাক্ষীর মধ্যে ১৪ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়। মামলা নং ৩১(২)১০।
সাজাপ্রাপ্ত আসামিরা হলো- ফালাইন্নার ছেলে সজিব, মৃত-মোহন মিয়ার ছেলে রাসেল, হারুন অর রশিদের ছেলে জয় আহমেদ ওরফে জাহিদুল ইসলাম। সাজাপ্রাপ্ত চার পলাতক আসামিরা হলো- রফিকুল্লা ওরফে রফিকের ছেলে ইউসুফ, মৃত আফজালের ছেলে রফিকুল্লা ওরফে রফিক, চান মিয়ার ছেলে দেলোয়ার ওরফে দেলু এবং আবু তালেবের ছেলে শামীম।
এ মামলায় মোসলেমের ছেল রাজু আহম্মেদ, ইব্রাহিমের ছেলে শফি ওরফে শফিকুল ইসলাম বেকসুর খালাস পেয়েছেন।
নিহত আরাফাত সিদ্ধিরগঞ্জ আর্টি এলাকার মৃত আনোয়ার হোসেনের ছেলে। গত ২০১০ সালে ক্রিকেট খেলার কথা বলে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে ধারালো ব্লেডের আঘাতে রক্তাক্ত জখম করে হত্যা করা হয় তাকে।
রাষ্ট্র পক্ষের আইনজীবী অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর (এপিপি ) এড. জাসমিন আহমেদ জানান, ২০১০ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি বিকেল সাড়ে পাঁচটায় সদর উপজেলার সিদ্ধিরগঞ্জ থানার আটি এলাকার আনোয়ার হোসেনের ছেলে দশম শ্রেণির ছাত্র আরাফাতকে ক্রিকেট খেলার কথা বলে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে যায় আসামি ইউসুফ। এরপর থেকে আরাফাত নিখোঁজ থাকে। পরে স্থানীয়রা দেখতে পান গভীর রাতে উল্লেখিত আসামিরা আরফাতকে একটি নৌকায় তুলে নিয়ে তার সারা শরীরে ব্লেড দিয়ে খুঁচিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। ঘটনার পরদিন দুপুরে ওই এলাকার একটি পরিত্যক্ত স্থান থেকে পুলিশ আরাফাতের লাশ উদ্ধার করে। এ ঘটনায় নিহত আরাফাতের বাবা আনোয়ার হোসেন সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় বাদি হয়ে নয়জনকে আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করেন। পরে এই মামলায় আসামি সজীব, দেলোয়ার ও রুবেল হত্যাকা-ের দোষ স্বীকার করে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। আরাফাতকে অপহরণ থেকে শুরু করে হত্যাকা-ের বর্ণনাও দেয় তারা। আদালত এই মামলায় ২৫ জন স্বাক্ষীর মধ্যে ১৪ জন স্বাক্ষীর স্বাক্ষ্য গ্রহণ শেষে এ রায় প্রদান করেন।

Please follow and like us: