বন্দরের আ.লীগ নেতা কোলকাতায় নারীসহ আটক, হেনস্থা

বন্দরের আওয়ামী লীগ নেতা কোলকাতায় নারী নিয়ে ফুর্তি করতে গিয়ে এলাকাবাসীর হাতে আটক হয়ে নাজেহাল হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। যদিও আটক ব্যক্তি নূরুজ্জামান দাবি করেছেন, ওই নারীর নাম জেরিন। তিনি তার দ্বিতীয় স্ত্রী।

ঘটনাটি চলতি বছরের জুলাই মাসের শেষের দিকে ঘটলেও গত দুদিন ধরে এ সংক্রান্ত একটি ভিডিও যত্রতত্র ছড়িয়ে পড়েছে। এ নিয়ে পুরো বন্দর উপজেলাজুড়ে চলছে তুমুল সমালোচনা।

নারীসহ আটক নূরুজ্জামান সদ্য শেষ হওয়া বন্দর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী ছিলেন। তিনি উপজেলার বেজেরগাঁও মিনারবাড়ি এলাকার আব্দুল খালেকের পুত্র। তবে, তিনি নিজিকে আওয়ামী লীগ নেতা দাবি করলেও তার কোনো পদপদবী নেই বলে জানিয়েছে স্থানীয় সূত্র।

এদিকে এ প্রসঙ্গে জানতে নূরুজ্জামানের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হয় নারায়ণগঞ্জ টুডে’র পক্ষ থেকে। ঘটনাটি আজ (৮ আগস্ট) থেকে ১০-১২ দিন আগের ঘটনা জানিয়ে তিনি বলেন, “ওই নারী আমার দ্বিতীয় স্ত্রী। তার নাম জেরিন। আমরা কোলকাতায় সরা-কাবিন করেছি। সে আমার স্ত্রী। ঘটনার দিন তাকে নিয়ে হসপিটাল গিয়েছিলাম। সেখান থেকে ফিরতে ফিরতে রাত সাড়ে ১১ টা বেজে যায়। পরে তাকে তার ফ্ল্যাটে পৌঁছে দিতে গেলে ওই ফ্ল্যাটের নিচে গাড়ি পার্কিংয়ের স্থানে ওখানকার (কোলকাতা) কিছু বখাটে লোক আমাদের আটক করে। তাদেরকে আমি বলেছি এবং ওই মেয়েও বলেছে আমরা স্বামী স্ত্রী।”

এদিকে প্রকাশিত ভিডিওতে নূরুজ্জামান ওই নারীকে স্ত্রী দাবি করলেও এ স্বপক্ষে কোনো ধরণের প্রমাণপত্র দেখাতে পারেনি। এমনকি ওই নারীর জবানিতে প্রথম তাকে স্বামী বললেও পরমুহূর্তে তিনিই বলছিলেন, ‘আমরা এখনও বিয়ে করিনি, বিয়ে করবো’। এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে নূরুজ্জামান নারায়ণগঞ্জ টুডে’কে বলেন, “তাদেরকে প্রমাণ দেখাতে আমি বাধ্য ছিলাম না। এটাই সত্য আমরা স্বামী-স্ত্রী। এমনকি তারা আমাদেরকে আপত্তিজনক অবস্থাতেও পায়নি। পুরো ঘটনাটিই সাজানো ছিলো।”

এদিকে বন্দরে তার স্ত্রী রয়েছে, স্ত্রী রেখে আরেকটি বিয়ে করা কতটা সমুচিন, জানতে চাইলে তিনি পাল্টা প্রশ্ন করে বলেন, “ইসলামে কি দ্বিতীয় বিয়ে করা নিষেধ আছে নাকি?”

দ্বিতীয় বিয়ে করতে গেলে প্রথম স্ত্রীর অনুমতি নিতে হয়, তেমন কোনো অনুমতি প্রথম স্ত্রীর কাছ থেকে নিয়েছেন কিনা, নূরুজ্জামানের কাছে এ সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি নারায়ণগঞ্জ টুডে’কে বলেন, “হ্যাঁ অনুমতি নিয়েছি। বৈধ ভাবেই আমরা বিয়ে করেছি। এখন যা ছড়ানো হচ্ছে তা আমার মানহানি ঘটানোর জন্যই ছড়ানো হচ্ছে।”

এদিকে ভিডিওটি কোলকাতার স্থানীয় বখাটে ছেলেরা তুলেছে, কিন্তু ওই নারীর সঙ্গে অন্তরঙ্গ ছবি প্রকাশ পেল কীভাবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, “সে আমার স্ত্রী, অন্তরঙ্গ হতেই পারি। কীভাবে প্রকাশ পেয়েছে তা আমি জানি না।”

এদিকে স্থানীয় সূত্রগুলো বলছে, ক্ষমতাসীন দলের ছত্রছায়ায় অর্থিকভাবে স্বচ্ছল হয়ে উঠা নূরুজ্জামান প্রায় সময়ই কোলকাতা যাতায়াত করে থাকে। নারী ঘটিত ব্যাপারগুলো তার পরিবারের মধ্যেও আলোচনায় রয়েছে। এ নিয়ে কলহেরও সৃষ্টি হয়ে থাকে। এছাড়াও যে নারীকে তিনি তার স্ত্রী হিসেবে দাবি করছেন, তিনি তার স্ত্রী নন বলেও সূত্রগুলো দাবি করেন। কেননা, নূরুজ্জামান জেরিন নামে ওই নারীকে দ্বিতীয় স্ত্রী দাবি করলেও এর স্বপক্ষে কোনো প্রমাণই তিনি দেখাতে পারেননি। (সূত্র: নারায়ণগঞ্জ টুডে )

Please follow and like us: