অস্বাভাবিক সন্তানদের প্রতি অভিভাবকদের বিনয়ী আচরণ করতে হবে : রশিদ

রুদ্রবার্তা২৪.কম: বন্দর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা এমএ রশিদ বলেছেন, অটিজম শিক্ষালয়ে ভর্তি করলেও অভিভাবকদের দায়িত্ব শেষ নয়। সন্তানদের প্রতি অভিভাবকদের অনেক দায়িত্ব রয়েছে। একজন অস্বাভাবিক সন্তানদের প্রতি অভিভাবকদের বিনয়ের সহিত আচরণ করতে হবে। অন্য সন্তানদের চেয়ে একজন অটিজম সন্তানকে একটু বেশি ভালোবাসুন। তাদের সাথে বিনয়ী আচরণ করেন। দেখবেন তারা অনেকটা স্বাভাবিক হয়ে উঠবে।
শনিবার ৫ আগস্ট দুপুর ১২টায় বন্দর ইউনিয়ন দক্ষিণ কলাবাগস্থ ডা. এএফ হক অটিজম চাইল্ড কেয়ার মডেল একাডেমি আয়োজিত ঈদ সামগ্রী বিতরনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
তিনি আরো বলেন, সারা পৃথিবীতে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার সুযোগ্য কন্যা পুতুল ওয়াজেদ অটিজম নিয়ে কাজ করে ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছেন। তাঁর অভিজ্ঞতা এখন সারা বিশে^ ছড়িয়ে আছে। একসময় অটিজমরা ছিল সমাজ ও জাতির জন্য বোঝা। এ বোঝা এখন আর বোঝা নেই। কেননা এ অটিজমদের দায়িত্ব নিয়েছে রাষ্ট্র। অটিজমরা এখন কারিগরি শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কাজ করে এখন স্বাবলম্বি হচ্ছে। এখন তারা কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার হয়ে বড় বড় প্রতিষ্ঠানে চাকরি করে। সুতরাং অটিজমদের এখন খাটো করে দেখার অবকাশ নেই। আমি এ দক্ষিণ কলাবাগস্থ প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে অটিজম শিক্ষালয়ের প্রতিষ্ঠাতা ও শিক্ষকদের সাথে আলোচনার মাধ্যমে সমস্ত প্রকার সহযোগীতা করব ইনশাআল্লাহ।
ডা. এএফ হক অটিজম চাইল্ড কেয়ার মডেল একাডেমির প্রতিষ্ঠাতা ইঞ্জিনিয়ার ওবায়দুল হক আরিফের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বন্দর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি পনির হোসেন, কলাগাছিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহিম কাশেম, বন্দর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি আলী হোসেন, কলাগাছিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি মোঃ রুহুল মিয়া, কলাগাছিয়া ইউনিয়ণ ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সোয়েব মোহাম্মদ লিটন, বন্দর ইউনিয়ন পরিষদের ১নং ওয়ার্ডের মেম্বার ইউসুফ ও অটিজম চাইল্ড কেয়ার মডেল একাডেমির শিক্ষক-শিক্ষার্থী অভিভাবকবৃন্দ। পরিশেষে সকল অটিজম শিক্ষার্থীদের ঈদ সামগ্রী বিতরন করা হয়।

Please follow and like us: