শহরের মূর্তিমান আতঙ্ক আজমেরী ওসমান: এড. মাসুম

 

রুদ্রবার্তা ২৪ঃ শহরের মূর্তিমান আতঙ্ক আজমেরী ওসমানÑ এমন মন্তব্য করেছেন নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সভাপতি এড. মাহবুবুর রহমান মাসুম। তিনি পুলিশ সুপারকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘শহরের মূর্তিমান আতঙ্ক আজমেরী ওসমানের আস্তানায় হানা দিয়ে আপনি সাহসিকতার পরিচয় দিয়েছেন। ¯^াধীনতার পর থেকে এই নারায়ণগঞ্জ জিম্মি ছিল। সে খানপুরে একজনের হাতের কব্জি কেটে ফেললো। তিনি হাজী সাহেব। হজ্ব করে আসা হাজী সাহেব না।’

বুধবার (৩ জুলাই) সকালে নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে বেসরকারি টেলিভিশন এনটিভি’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, ‘আজমেরী নিজের বন্ধু আলমগীরকে গুলি করে হত্যা করেছে। তার হাতে অনেকগুলি খুন হয়েছে। এই আল্লামা ইকবাল রোডে অন্তত ত্রিশটা সিসি ক্যামেরা লাগিয়েছে। যাতে আইনশৃক্সখলা বাহিনী আসলেই টের পাওয়া যায়। এই কিছুদিন আগে জন্মদিনের অনুষ্ঠানে হাজী সাহেবের ছাদের উপর থেকে রাউন্ডের পর রাউন্ড গুলিবর্ষন হয়েছে। কোথায় পায় এই গুলি? এসপি সাহেবকে বলবো, যাদের ধরেছেন তো ধরেছেন। এদের মূল উৎপাটন করুন। পুলিশের মধ্যম পর্যায়ের কোন কর্মকর্তা তাদের ধরার সাহস পায় না। দুই এমপির আত্মীয়, সাবেক এমপির ছেলে। আইন আইনের মতো চলবে বলে আমি বিশ্বাস করি।’

মাহবুবুর রহমান মাসুম বলেন, ‘আরো রয়েছে ডিশ বাবু। প্রতিটা ক্যাবল ব্যবসায়ীদের জিম্মি করে রেখেছে ডিশ বাবু। তাকে আইনের আওতায় আনা হয়েছিল। কিন্তু বিচার বিভাগ জিম্মি থাকার কারণে সে আবার ছাড়া পেয়ে যায়। তারপর শাহ্ নিজাম নাকি কমিউনিটি পুলিশের মহানগরের সেক্রেটারি। হকার ইস্যুর সময় মেয়র আইভী বেরিয়েছেন তখন প্রকাশ্য গুলি করেছে সে।’

সিটি মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর পর বর্তমান এসপি হারুন অর রশীদের পেছনে সাধারণ মানুষ থাকে বলে মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘মানুষ এখন কথা বলে। মানুষ এখন ভয় পায় না। আপনি নিজেকে একা ভাববেন না। আপনার সাথে আমরা আছি, মিডিয়া আছে, পুলিশ বাহিনী আছে, সাধারণ মানুষ আছে। কনস্টেবল নিয়োগের ক্ষেত্রে টাকা লেনদেনের কথা বললে তাকে গ্রেফতার করা হবে, এমন শ্লোগান কখনো শোনা যায় নাই। আপনি যে ধারার সূচনা করলেন সেই ধারা অব্যাহত রাখবেন অন্যান্যরা সেটাই আশা করি। কারণ সেই মান্দাতার আমলের পুলিশ বাহিনী কিন্তু এখন নেই।’

এনটিভি’র জেলা প্রতিনিধি নাফিজ আশরাফের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, জেলা পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদ, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাই, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) আব্দুল্লাহ আল মামুন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) মো. নূরে আলম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিবি) সুবাস চন্দ্র সাহা, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (‘ক’ অঞ্চল) মেহেদী ইমরান সিদ্দিকী, মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহ সভাপতি এড. সাখাওয়াত হোসেন খান, সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব রফিউর রাব্বি, শ্রমিক নেতা কাউসার আহমেদ পলাশ, নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক হাসানুজ্জামান ভ‚ইয়া শামীম, সাবেক সাধারণ সম্পাদক শরীফউদ্দিন সবুজ, নারায়ণগঞ্জ জেলা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আব্দুস সালাম, সাধারণ সম্পাদক আফজাল হোসেন পন্টি প্রমুখ।

Please follow and like us: